বালিয়াকান্দি প্রধান সড়ক সংস্কারে ব্যাপক অনিয়ম ॥ ব্যবসায়ীদের মাঝে চরম ক্ষোভ - Bangla News 24 Online

BANGLA NEWS 24 ONLINE বাংলা নিউজ ২৪ অনলাইন। Bangla Newspaper বাংলা নিউজ পেপার - BD News 24, BD News Today and Banlga News Today ||

Breaking

Home Top Ad

Tuesday, July 7, 2020

বালিয়াকান্দি প্রধান সড়ক সংস্কারে ব্যাপক অনিয়ম ॥ ব্যবসায়ীদের মাঝে চরম ক্ষোভ

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি বাজার প্রধান সড়ক সংস্কারে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। এতে ব্যবসায়ীদের মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হলেও তদারকি কর্তৃপক্ষ রহস্যজনক কারণে নিরব রয়েছে। 

স্টাফ রিপোর্টার। রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি বাজার প্রধান সড়ক সংস্কারে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। এতে ব্যবসায়ীদের মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হলেও তদারকি কর্তৃপক্ষ রহস্যজনক কারণে নিরব রয়েছে।

উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয় সুত্রে জানাগেছে, বালিয়াকান্দি জিসি-নারুয়া জিসি সড়কের বালিয়াকান্দি জিরো পয়েন্ট থেকে ৬শত মিটারের সংস্কার কাজ ১৩ লক্ষ ৮৫ হাজার টাকা ব্যয়ে কাজ করছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মৃধা এন্টার প্রাইজ।

বালিয়াকান্দি বাজারের একাধিক ব্যবসায়ী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে বালিয়াকান্দি-নারুয়া সড়কে কাদাপানি মাড়িয়ে চলাচল ও ক্রয় বিক্রয় করে আসছিলেন। সম্প্রতি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাদা পানির উপর খোয়া ছিটিয়ে সমান করার চেষ্টা করলেও রয়েছে অসংখ্য গর্ত। শনিবার বিকালে সড়কে প্লানকোর্ড দেওয়া শেষ না হতেই মুসলধারে  বৃষ্টিতে সড়কটি আগের অবস্থায় ফিরে যায়। নতুন করে প্লানকোর্ড না দিয়েই সোমবার কাদা মাটির উপর কার্পেটিং করা হচ্ছে। আমাদের ধারনা যে ভাবে কাজ করা হচ্ছে তাতে কয়েকদিনের মধ্যেই সড়কটি আবার আগের অবস্থায় ফিরে যাবে।

তারা আরো বলেন, শুনতে পারলাম, সড়কটি সম্প্রসারণ করাসহ নতুন করে টেন্ডার হবে দু,এক মাসের মধ্যে। তাহলে এ কাজের মানে কি। এটা কি সরকারের অপচয় নয়। বিষয়টি খতিয়ে দেখে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ জানাই।

সোমবার দুপুরে সরেজমিনে গেলে দেখাযায়, উপজেলা প্রকৌশলী আলমগীর বাদশা নিজেই কাজের তদারকি করছেন। তাকে জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, সুন্দর ভাবেই কাজ হচ্ছে। ঠিকাদার লজ দিয়েই কাজ করছে। তবে ধুলা-বালির মধ্যে প্লানকোর্ড ছাড়া কিভাবে কাজ করছে জানতে চাইলে বলেন, প্লান কোর্ড দেওয়া হয়েছে বৃষ্টিতে ধুয়ে চলে গেছে। এতে কোন সমস্যা নেই।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার একেএম হেদায়েতুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি অনেকেই আমাকে ফোনে অবগত করেছেন। উপজেলা প্রকৌশলীকে অফিসে আসতে বলেছি।

No comments:

Post a Comment