জামালপুরে জোর করে মাছ মেরে নেয়ার চেষ্টা অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা - Bangla News 24 Online

BANGLA NEWS 24 ONLINE বাংলা নিউজ ২৪ অনলাইন। Bangla Newspaper বাংলা নিউজ পেপার - BD News 24, BD News Today and Banlga News Today ||

Breaking

Home Top Ad

Wednesday, January 6, 2021

জামালপুরে জোর করে মাছ মেরে নেয়ার চেষ্টা অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা

জামালপুরে জোর করে মাছ মেরে নেয়ার চেষ্টা অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের হয়েছে। 

স্টাফ রিপোর্টার ॥ রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের হাতিমোহন মৌজার বর্ষার পানিতে নিমজ্জিত ৫০৪ শতাংশ জমিতে চাষকৃত মাছ জোরপূর্বক মেরে নেয়ার চেষ্টার ঘটনায় আদালতে মামলা দায়ের হয়েছে। 

গত ২৮শে ডিসেম্বর ওই জমির অন্যতম ওয়ারীশ জামালপুর ইউনিয়নের ভর রামদিয়া গ্রামের প্রভাষ কুমার বিশ্বাস বাদী হয়ে ফৌজদারী কার্যবিধি আইনের ১৪৪ ও ১৪৫ ধারায় রাজবাড়ীর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় একই ইউনিয়নের বাকসীডাঙ্গী গ্রামের শাহিদ মিয়া, বিল্লাল শেখ, আসাদ শেখ, ইউনুস মল্লিক, মাসুদুর রহমান, গিয়াস মল্লিক, কিরণ চন্দ্র মন্ডল ও অমল সন্যাসী এবং নটাপাড়া গ্রামের রাজন মন্ডলের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরো ৮/১০ জনকে বিবাদী করা হয়েছে। 

বিজ্ঞ বিচারক মামলার ২য় পক্ষকে (বিবাদীদেরকে) ‘কেন তাদের বিরুদ্ধে ফৌঃ কাঃ বিঃ ১৪৫ ধারা মতে প্রবেশ বারিত (নিষেধ) করা হবে না’ তার জবাব প্রদান, জামালপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে সরেজমিনে তদন্ত করে যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে দখল প্রতিবেদন দাখিল, বালিয়াকান্দি থানার ওসিকে ‘উক্ত সম্পত্তি নিয়ে শান্তি ভঙ্গের আশংকা আছে কিনা’ তার সুস্পষ্ট প্রতিবেদন দাখিল এবং আশংকা পরিলক্ষিত হলে শান্তি রক্ষার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আদেশ দিয়েছেন।     

   মামলার অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, হাতিমোহন মৌজার উক্ত ৫০৪ শতাংশ জমি বাদী ও অন্যান্যরা ওয়ারীশ সূত্রে প্রাপ্ত হয়ে যৌথভাবে ভোগ-দখলে আছেন। এস.এ রেকর্ডের সময় জমিটি সরকারী কর্তৃপক্ষের ভুলক্রমে ১ নং খতিয়ানে রেকর্ডভুক্ত হলে আর.এস শরীকগণ বাদী হয়ে সরকারের বিরুদ্ধে তৎকালীন গোয়ালন্দ মুন্সেফী আদালতে দেঃ ১৭১/৭৬ নং মামলা দায়ের করে ২২/০৪/১৯৮০ ইং তারিখের রায়ে ডিক্রী প্রাপ্ত হন। 

পরবর্তীতে সরকার পক্ষ ঝামেলা সৃষ্টি করলে দেঃ ৭১/৯৯ নং নিষেধাজ্ঞার মামলা দায়ের করে, যা ২০/০৮/২০০০ ইং তারিখের রায় ও ২৪/০৮/২০০০ ইং তারিখে ডিক্রী প্রাপ্ত হন। হাল বি.এস রেকর্ডে সরকারের ১ নং খতিয়ানে রেকর্ডভুক্ত হলে বাদী পক্ষ রাজবাড়ীর ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনালে এল.এস.টি-২৪৩/১৯ নং মামলা দায়ের করেন, যা চলমান রয়েছে। জমিটি নীচু প্রকৃতির হওয়ায় বর্ষা মৌসুমে মাছ চাষ এবং শুকনা মৌসুমে পানি শুকালে ধান চাষ করে বাদী পক্ষ ভোগ-দখলে রয়েছেন। গত ২৬শে ডিসেম্বর সকাল ৮টার দিকে বিবাদীরা জোটবদ্ধভাবে ওই জমি থেকে জোরপূর্বক মাছ মেনে নেয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু বাদী পক্ষের বাধায় তারা মাছ মেরে নিতে না পেরে হুমকী দিয়ে চলে যায়। 

No comments:

Post a Comment